রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০২:০০ পূর্বাহ্ন

পাকিস্তান ভেঙে তিন ভাগ হবে, সেনাবাহিনীর প্রতি ইঙ্গিত!

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : জুন ২, ২০২২

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তার দেশ ভেঙে তিন ভাগ হয়ে যেতে পারে আশঙ্কা করছেন। সেনাবাহিনীর প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেছেন, রাষ্ট্রের এই প্রভাবশালী প্রতিষ্ঠানটি যদি সঠিক সিদ্ধান্ত না নেয় তাহলে এমনটিই হবে।

একটি বেসরকারি টেলিভিশনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) দলের চেয়ারম্যান ইমরান খান বুধবার এই হুঁশিয়ারি দেন। সম্প্রতি পাকিস্তানের পার্লামেন্টে বিরোধীদের আনা অনাস্থা ভোটে হেরে ক্ষমতাচ্যুত হন ইমরান খান।

ইমরান বলেন, সঠিক সিদ্ধান্ত না নিলে তার দেশ আত্মহত্যার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যাবে। তার দেশ খেলাপি হওয়ার দিকে যেতে পারে। যদি এস্টাবলিশমেন্ট (পাকিস্তান সেনাবাহিনী) সঠিক সিদ্ধান্ত না নেয়, তাহলে আমি আপনাকে লিখে দিতে পারি, তারা ধ্বংস হবে (পাকিস্তান ও এস্টাবলিশমেন্ট)। সশস্ত্র বাহিনীই প্রথমে ধ্বংস হবে।’

পিটিআই প্রধান সতর্ক করে বলেন, দেশ ধ্বংস হলে সেটি খেলাপি হবে। তখন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় পাকিস্তানকে পরমাণু-নিরস্ত্রীকরণের কথা বলবে। ঠিক যেমনটা গত শতকের নব্বইয়ের দশকে ইউক্রেন করেছিল।

তিনি আরও বলেন, সব উপায়ে যুক্তরাষ্ট্রকে সন্তুষ্ট করবে পাকিস্তানের বর্তমান জোট সরকার। যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও ইসরায়েলি জোটকে খুশি রাখতে সব সময়ই কাজ করে এসেছেন পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) সর্বোচ্চ নেতা নওয়াজ শরীফ ও পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) কো-চেয়ারম্যান আসিফ আলী জারদারি।

ইমরান খান বলেন, পাকিস্তানের বর্তমান সরকারের পরিকল্পনা দেশকে শক্তিশালী করা নয়। তাকে যখন ক্ষমতাচ্যুত করা হয়, তখন তার উদযাপন ভারতে এমনভাবে হয়েছে, যেন নতুন প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফ একজন ভারতীয়।

পাকিস্তানের সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর দাবি, তিনি স্বাধীন পররাষ্ট্রনীতি গ্রহণ করতে চেয়েছিলেন বলে তাকে ভারত পছন্দ করেনি।

যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে পাওয়া কথিত হুমকির চিঠির বিষয়টি তদন্ত করতে পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতি উমর আতা বান্দিয়ালের প্রতি ফের আহ্বান জানিয়েছেন ইমরান খান। এই চিঠিতে পিটিআই সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার হুমকি ছিল বলে দাবি ইমরান খানের।

পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার দাবিতে ফের ইসলামাবাদ অভিমুখে ‘মার্চ’ করবেন বলে জানান পিটিআইয়ের চেয়ারম্যান। তবে তিনি বলেন, তার এই প্রতিবাদী কর্মসূচি আদালতের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ