বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২৭ পূর্বাহ্ন

শক্তিশালী হচ্ছেন রওশন, দুর্বল জিএম কাদের!

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪

সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জাতীয় পার্টিতে অভ্যন্তরীণ কোন্দল শুরু হয়। সেখান থেকে দিনদিন শক্তিশালী হয়ে উঠছেন রওশন এরশাদপন্থিরা। অন্যদিকে, দল থেকে একের পর এক নেতাকে অব্যাহতি দিয়ে ক্রমেই সাংগঠনিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ছে দলের চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদেরের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির মূল অংশ। ফলে, আগামীতে ক্ষমতাসীনদের ‘সুদৃষ্টি’ পেলে রওশন এরশাদের নেতৃত্বাধীন অংশই মূল জাতীয় পার্টিতে পরিণত হবে বলে আশা রওশনপন্থিদের।
নেতারা বলছেন, নেতার সংখ্যার দিক থেকে এখনো জিএম কাদেরের সঙ্গে রয়ে গেছেন অধিকাংশরা। আর সংসদেও রয়েছে জিএম কাদেরের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি। কিন্তু সাংগঠনিক দিক থেকে দুর্বল জাতীয় পার্টি আরও দুর্বল হয়ে পড়ছে। কারণ রাজধানীতে জাতীয় পার্টির যেকোনো সভা-সমাবেশে লোকবল (ম্যান পাওয়ার) দিয়ে থাকেন দলের কো-চেয়ারম্যান আবুল হোসেন বাবলা এবং প্রেসিডিয়াম সদস্য শফিকুল ইসলাম সেন্টু। এ দুজন এখন রওশন এরশাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। এ ছাড়া নারায়ণগঞ্জের সেলিম ওসমান, পুরান ঢাকার সাইফুদ্দিন মিলন ও কাজী ফিরোজ রশীদ রাজধানীর সভা-সমাবেশে লোকবল দিয়ে থাকেন। এই তিনজনের মধ্যে কাজী ফিরোজ রশীদ রওশন এরশাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। আর সাইফুদ্দিন মিলন রওশন এরশাদের সঙ্গে যোগ না দিলেও তিনি জিএম কাদেরের প্রতি ক্ষুব্ধ। ফলে এখন লোকবল সমাগম করার মতো জিএম কাদেরের সঙ্গে আছেন একমাত্র সেলিম ওসমান।
জিএম কাদেরের অংশের নেতারা বলছেন, সারা দেশে জাতীয় সাংগঠনিক অবস্থা আগে থেকেই দুর্বল। তার মধ্যে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়া নেতারাও প্রত্যাশা অনুযায়ী আর্থিক সুবিধা না পাওয়া জিএম কাদেরের নেতৃত্বের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে আছেন। তারাও এখন রওশন এরশাদের সঙ্গে যোগ দিচ্ছেন। ফলে দলের মূল নেতৃত্বে এবং সংসদে জিএম কাদের থাকলেও সাংগঠনিকভাবে তিনি ক্রমেই দুর্বল থেকে আরও দুর্বল হয়ে পড়ছেন। এ অবস্থায় দলটি আগামীতে কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে, সেটা এখনই বলা মুশকিল। তবে চলমান অবস্থা অনুধাবন করতে পেরে ইতোমধ্যে রাজধানীতে বিভিন্ন সভা-আলোচনা করার উদ্যোগ নিচ্ছেন জিএম কাদের।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, কারা তার (রওশন এরশাদ) সঙ্গে গেল আর না গেল, এটা নিয়ে চিন্তিত নই। তাদের নিয়ে আমার কোনো ভাবনাও নেই।

তিনি বলেন, তাদের (রওশন এরশাদের) সম্মেলন করার এখতিয়ার নেই। সারা দেশের নেতাকর্মীরা তাদের সঙ্গে থাকলেও তারা সম্মেলন ডাকতে পারেন না। আর এটা তারা করছেন না, একটি পক্ষ তাদের দিয়ে করাচ্ছে। যারা জাতীয় পার্টিকে দুর্বল করতে চায়।

জিএম কাদের বলেন, সম্মেলন করার একমাত্র এখতিয়ার আমাদের আছে। আর দলের সম্মেলন করার একটা প্রক্রিয়া রয়েছে। সেই অনুযায়ী আমরা সম্মেলন করবে। এখন তারা সম্মেলন করল না কি অন্য কিছু করল, সেটা নিয়ে আমরা চিন্তিত নই।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে জিএম কাদের অংশের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, নির্বাচনে সরকারের কাছ থেকে জাতীয় পার্টি ২৬টি আসন ছাড় পেলেও মাত্র ১১টি আসনের প্রার্থীরা জয়ী হতে পেরেছে। আমিসহ অন্য প্রার্থীরা জয়ী হতে পারেনি। ফলে যারা নির্বাচনে জয়ী হতে পারেনি তারাও নানা কারণে জিএম কাদেরের প্রতি অসন্তুষ্ট। অন্যদিকে ঢাকার সভা-সমাবেশে যেসব নেতা লোকবল দিয়ে থাকেন তাদের তিনি দল থেকে অব্যাহতি দিয়ে দিয়েছেন। এখন সেই সব নেতা রওশন এরশাদের সঙ্গে যোগ দিয়ে সেই অংশকে শক্তিশালী করছে। তাই এটা নিশ্চিত করে বলা যায়, ঢাকায় সাংগঠনিকভাবে ক্রমেই দুর্বল হয়ে পড়ছেন জিএম কাদের। অন্যদিকে শক্তিশালী হচ্ছেন রওশন এরশাদ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ