রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:২৪ অপরাহ্ন

বাপ রাজাকার :পুত্র ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা তবুও চান আওয়ামী লীগের মনোনয়ন !

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : অক্টোবর ২৩, ২০২১

তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘীরে সারাদেশ এখন যখন উৎসবমুখর পরিবেশ। সারা দেশে তৃতীয় ধাপে এক হাজার সাতটি ইউনিয়নে প্রার্থীরা অপেক্ষা করছে কারা পাচ্ছেন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন। অনেকের মনে আছে আনন্দ,আবার কারো কারো মনে আছে শঙ্কা।

কিন্তু এরই মধ্যে অভিযোগ উঠেছে স্বাধিকার আন্দোলনের সময় এক রাজাকার পুত্র চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী। ইতিমধ্যে রাজাকার পুত্রকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দিতে থানা আওয়ামী লীগ সুপারিশ করেছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয়, ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা নিজেকে প্রথম সাঁড়ির মুক্তিযোদ্ধা দাবি করে ব্যানার পোস্টার সাঁটানোয় সর্বত্র সমালোচনার ঝড় বইছে।

ঘটনাটি ঘটেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলা ১৪ নং জিনদপুর ইউনিয়নে। ঘটনার বিবরনে জানা গেছে, ১৪ নং ইউনিয়নে দীর্ঘ দিন ধওে চেয়ারম্যান হিসেবে আছেন বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুর রউফ। তিনি বাস্তবে কোন মুক্তিযোদ্ধা নন। অথচ কাগজে কলমে লেখেন বীর মুক্তিযোদ্ধা। এখন পর্যন্ত কোন ধরণের গেজেটে আবদুর রউফের নাম মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে না থাকলেও তিনি সকল অনুষ্ঠান এমনকি ইউনিয়ন পরিষদের দাপ্তরিক কাগজ পত্রে নিজের নামের আগে মুক্তিযোদ্ধা লিখেন। যা দণ্ডনীয় অপরাধও বটে। তারপরও অবৈধ অর্থেও জোরে নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা দাবি করেন আবদুর রউঠ।

শুধু তাই নয়, তার বাবা মনছুর আলী একজন গেজেটেড ভুক্ত রাজাকার এমন অভিযোগ করে গত ২১ অক্টোবর আওয়ামী লীগ সভাপতি বরাবার লিখিত আবেদন করেছে আমীর হোসেন নামের এক স্থানীয় বাসিন্দা। তিনি বলেন একজন ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সর্বত্র নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা দাবি করবে সরকারের কি কিছুই করার নেই। তিনি বলেন আবদুর রউফ কখনোই আওয়ামী লীগের বন্ধু ছিলেন না। আবদুর রউফ আওয়ামী লীগের শত্রু বলেও অভিযোগকারী দাবি করেন।
জানা গেছে,সম্প্রতি ভুয়া এই মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রউফকে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দিতে নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ কেন্দ্রের কাছে তার নাম ১ নং হিসেবে দেখিয়ে মনোনয়ন দিতে সুপারিশ করেছে। এ নিয়ে পুরো উপজেলায় তোলপাড় শুরু হয়েছে।

সম্প্রতি ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে লোক মুখে পরিচিতি পাওয়া আবদুর রউফের বাবাকে চট্টগ্রাম বিভাগের কুমিল্লা তথা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নবীনগর উপজেলার যে রাজাকার গেজেট প্রকাশ করেছে সরকার সেখানে রউফ চেয়ারম্যানের বাবার নাম ১০ নম্বরে।

এ বিষয়ে একাধিক বার আবদুর রউফ চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি সাক্ষাৎ কিংবা কোন ধরনের কথা বলতে রাজী হননি।

এ বিষয়ে স্থানীয় ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান বলেন , যদি রউফ চেয়ারম্যানের মত ভুয়া আর রাজাকারের পুত্র আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পায় তবে সেটি হবে আমাদের জন্য লজ্জার । তিনি বলেন আমরা রউফ চেয়ারম্যানকে ঘৃণা করি কারণ তিনি মুক্তিযোদ্ধা না হয়েও তিনি নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা দাবি করে সকল মুক্তিযোদ্ধাদের অপমান করেছেন। তাকে যেন চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়া না হয় সে অনুরোধও তিনি করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ