মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন

পেট ফেটে জন্ম নেয়া নবজাতক পেয়েছে দুধমা

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : জুলাই ১৮, ২০২২

দুনিয়ার সবরকম রূপই দেখতে পেলো দুদিনের ছোট্ট শিশুটি। ময়মনসিংহের ত্রিশালে সড়ক দুর্ঘটনায় মায়ের পেট ফেটে জন্ম নেয়া নবজাতক পেয়েছেন দুধমা। তাকে দুধ খাওয়াচ্ছেন হাসপাতালে ভর্তি থাকা এক প্রসূতি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সেই দুধমা নিজের সন্তানের মতোই ভালোবাসা ঢেলে দিচ্ছেন জন্মের পরপরই এতিম হওয়া শিশুটির প্রতি। রবিবার (১৭ জুলাই) ময়মনসিংহ নগরের চরপাড়া এলাকার বেসরকারি লাবিব হাসপাতালে গেলে এই চিত্র দেখা যায়।

ওই হাসপাতালের দ্বিতীয় তলায় চিকিৎসকদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রয়েছে শিশুটি। পালাক্রমে একজন করে নার্স সেখানে সার্বক্ষণিক অবস্থান করছেন। বর্তমানে শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. কামরুজ্জামান এবং অর্থোপেডিক চিকিৎসক ডা. সোহেল রানার তত্ত্বাবধানে রয়েছে অলৌকিকভাবে বেঁচে থাকা এই শিশু।

ময়মনসিংহের ত্রিশালে ট্রাক চাপায় শিশুটির মা-বাবা ও বোন মারা যায়। গর্ভে থাকা শিশুটির জন্য আল্ট্রসনো করানোর জন্য হাসপাতালে যাচ্ছিলেন মা-বাবা। কিন্তু পথিমধ্যে ট্রাক চাপায় মায়ের মৃত্যু হলেও পেট চিরে বেরিয়ে আসে শিশুটি। একটি হাত ভেঙে গেলেও প্রাণে বেঁচে যায় সে।

হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শাহ জাহান জানান, শিশুটির এক হাত ভেঙে যাওয়ায় আরো ১০-১২ দিন চিকিৎসাধীন থাকতে হতে পারে। পুরো চিকিৎসাসেবা বিনামূল্যে দেওয়া হচ্ছে।

এর আগে শিশুটির সব দায়িত্ব নেয় ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন এবং সমাজসেবা বিভাগ।

অনেকেই শিশুটির দায়িত্ব নিতে চাইলেও শিশুটির পরিবারই এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছেন ওই চিকিৎসক্ তবে হাসপাতালে উপস্থিত শিশুটির মামা আরিফ (৩৫) জানান, আত্মীয়-স্বজন যাঁরা আছেন তাঁরা সবাই মিলেই শিশুটিকে দেখবেন।
নবজাতকের বড় বোন জান্নাত আক্তারের (১০) কাছে জানতে চাইলে কাঁদতে কাঁদতে বলে, ‘দাদা-দাদি ও আমি মিলে তাকে পালব। ’

গত শনিবার বিকেল পৌনে ৩টার দিকে ত্রিশালের কোর্ট ভবন এলাকায় রাস্তা পার হওয়ার সময় ট্রাকচাপায় প্রাণ হারান অন্তঃসত্ত্বা রত্না বেগম (৩২), তাঁর স্বামী জাহাঙ্গীর আলম (৪০) এবং তাঁদের ছয় বছরের মেয়ে সানজিদা। মারা যাওয়ার আগে প্রসব হওয়ায় বেঁচে যায় রত্মার গর্ভের সন্তান। পরে নবজাতকটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ত্রিশাল থানার ওসি মাইন উদ্দিন জানান, ওই ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। ঘাতক ট্রাকটি আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। চালককে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ