সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৬:৪৪ অপরাহ্ন

পদ্মা সেতুর স্প্যানে ধাক্কা : সন্দেহের চোখে দেখছে সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট : আগস্ট ৩১, ২০২১

পদ্মা সেতুতে ফেরির বারবার আঘাতের পর প্রবল স্রোতের অজুহাতে গত ১৩ দিন ধরে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার রুটে ফেরি বন্ধ করে দেয়া হয়। তারপরও পাটুরিয়ায় স্থানান্তরের সময় সেতুর স্প্যানে ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরের মাস্তুলের ধাক্কাকে সন্দেহের চোখে দেখছে সরকার। মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ঘটনাটি ছোটভাবে দেখার সুযোগ নেই। হালকা ভাবে দেখলে চলবে না। বিষয়টি জাতীয় গুরুত্বের সাথে দেখতে হবে। তিনি বলেন সরকারের সবচেয়ে অগ্রাধিকারের প্রকল্প হচ্ছে পদ্মা সেতু। যথাযথ তদন্ত শেষে ব্যবস্থা আমরা নিব।

অন্যদিকে নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জানান, পদ্মা সেতুর নিরাপত্তার জন্য আজকে ১৩ দিন ধরে সেখানে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। আমরা চাই এর সঠিক তদন্ত হোক এবং অপরাধী যেই হোক তার শাস্তি হবে। পদ্মা সেতুতে বাববার আঘাতের ঘটনা ষড়যন্ত্র কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে।

পদ্মা সেতুতে ফেরির বারবার আঘাত নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠেছে। প্রবল স্রোতের অজুহাতে গত ১৩ দিন ধরে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার রুটে ফেরি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তারপরও সেতুর স্প্যানে ফেরি বীর শ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরের মাস্তুলের ধাক্কার ঘটনাটি আবার সামনে চলে এসেছে।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু বাঙালির সক্ষমতা ও অগ্রযাত্রার স্মারক। এই সেতু ঘিরে কোটি-কোটি মানুষের স্বপ্ন এখন বাস্তবের দৌড়গোড়ায়।

গেলো তিন বছর ধরে সেতুর খুঁটি তৈরির হলেও এতোদিন কোন সমস্যা হয়নি। অন্যান্য সব ছোট বড় নৌযান চলছে কিন্তু শুধু ফেরি কেন বারবার আঘাত করছে সেটা নিয়ে নানামুখি প্রশ্ন সবার।

মঙ্গলবার সকাল ৭টা ১০ মিনিটে শিমুলিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে যায় ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর। শিমুলিয়া থেকে পাটুরিয়া যাওয়ার সময় পদ্মা সেতুর ২ ও ৩ নম্বর খুঁটির মাঝখানে ১-বি স্প্যানের সাথে ধাক্কা লাগে ফেরিটির। এতে ফেরির মাস্তুল পড়ে গেছে।
এর আগেও ফেরিটি গত ৯ আগস্ট সন্ধ্যায় পদ্মা সেতুর ১০ নম্বর খুঁটিতে ধাক্কা দেয়। এরপর থেকে ফেরিটি শিমুলিয়া ঘাটেই ছিল। এখানে মেরামত শেষে মঙ্গলবার এটি পাটুরিয়া যাচ্ছিল।

ফেরিটির উপরে অতিরিক্ত কোন অংশ ছিল বলে মনে করে পদ্মা বহুমুখী সেতু কর্তৃপক্ষ। বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান জানিয়েছে অবহেলার কারণে এমনটি হয়েছে। এর জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান তিনি।

বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান সৈয়দ তাজুল ইসলাম বলেন, ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর শিমুলিয়া থেকে পাটুরিয়া যাচ্ছিল। ফেরিটির উপরে মাস্তুলটি অতিরিক্ত অংশ। সেতু অতিক্রমের আগেই এটি সরিয়ে ফেলা উচিত ছিল। এটা সামান্য ব্যাপার। এটি ফেরির মাস্টারের অসাবধনার জন্য হয়েছে। ব্রিজটি অতিক্রম করার আগেই এটি নামিয়ে রাখার কথা। সেটা না করে মাস্তুলসহ ফেরিটি অতিক্রম করার সময় ব্রিজটির স্প্যানে মাস্তুল লেগে ভেঙে যায়। এটা আগেই নামিয়ে রাখা উচিত ছিল। তিনি বলেন এটা বড় কোন বিষয় না। কিন্তু পদ্মা সেতুর সঙ্গে লেগে এটা ভেঙ্গে গেছে। এটাকে আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আব্দুল কাদের জানান আমরা যতটুকু জেনেছি পদ্মা সেতুর ২ ও ৩ নম্বর খুঁটির মাঝখানে ১-বি স্প্যানে সাথে ধাক্কা লেগে ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরের মাস্তুল ভেঙে যায়। কিন্তু প্রথমে বিআইডব্লিউটিসি সেটা স্বীকার না করলেও পরে স্বীকার করেছে।

দুমাসে পাঁচটি ফেরি আরও পাঁচ দফা পদ্মা সেতুর খুঁটিতে ধাক্কা দেয়। গত ২, ২০ ও ২৩ জুলাই এবং ৯ ও ১৩ আগস্ট ফেরি পদ্মা সেতুর খুঁটিতে ধাক্কা দেয়। ২০ জুলাই ফেরি শাহ মখদুম ১৬ নম্বর পিলারে, ২৩ জুলাই ১৭ নম্বর পিলারে শাহজালাল, ৯ আগস্ট ১০ নম্বর পিলারে বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর ও সর্বশেষ ১৩ আগস্ট সেই ১০ নম্বর খুঁটিতে ধাক্কা খায় ফেরি কাকলী। তবে ২ জুলাই পদ্মা সেতুর কত নাম্বার খুঁটিতে ধাক্কা দেয় এটি জানা যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ