সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৭:১১ অপরাহ্ন

দেশে এখন কেউ না খেয়ে আছে?’: তাজুল

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : আগস্ট ১৩, ২০২২

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম প্রশ্ন করেছেন, ‘আমরা পরিবর্তন হয়েছি, অনেক ভালো আছি—এ কথা বলতে পারবো না? এখন কেউ না খেয়ে আছে? আগে তো খেতে পায়নি, এখন খেতে পায়। এখন আপনারা-আমরা ৩২ হাজার টাকা বেতন পাই।

শনিবার ((১৩ আগস্ট) সকালে রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। ‘জাতির পিতার সাংবিধানিক নির্দেশনা বাস্তবায়নে, স্থানীয় সরকারের শাসন ব্যবস্থা চাই’ শীর্ষক আলোচনা সভা, দোয়া অনুষ্ঠান ও রক্তদান কর্মসূচির এই অনুষ্ঠান আয়োজন করে বাংলাদেশ উপজেলা পরিষদ অ্যাসোসিয়েশন।

এ সময় মন্ত্রী বলেন, ‘খবর বেরিয়েছে, মূল্যবৃদ্ধির কারণে যুক্তরাজ্যের এক-তৃতীয়াংশ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে চলে যাবে। অথচ আমরা এখনও এ কথা মনে করতে পারি না যে আমাদের দরিদ্রতার পরিমাণ আগের তুলনায় কিছুটা বেড়ে যেতে পারে।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তাজুল ইসলাম বলেন, ‘আন্তর্জাতিক ও দেশের অবস্থাকে যদি বিশ্লেষণ করি, তাতে বাংলাদেশের অবস্থা অনেক দেশের চেয়ে ভালো আছে।’

এখন কেউ না খেয়ে আছে?—এমন প্রশ্ন রেখে মন্ত্রী বলেন, ‘আগে তো খেতে পায়নি, এখন খেতে পায়। এখন আপনারা-আমরা ৩২ হাজার টাকা বেতন পাই, কিন্তু পরিবার চালাতে কষ্ট হচ্ছে। আগে তো ৩ হাজার টাকা বেতন পেতেন। তখন একটি শাড়িই কিনতে পারতেন না। এখন ইউক্রেনে যুদ্ধের কারণে সারা পৃথিবীর মানুষ কষ্টে আছে। আমাদের ওপরও কিছুটা প্রভাব পড়েছে।’

দেশ কারও ওপর নির্ভরশীল নয় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ), যাদের কাছ থেকে ঋণ নিই, তারা কেউ আমাদের চেহারা দেখে টাকা দেয় না। আমাদের থেকে অনেক সুন্দর দেশ আছে, সবার সুন্দর চেহারা, কিন্তু এক টাকাও তাদের ঋণ দেয় না। তাদের (বহুজাতিক ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠান) ডেকেও নেওয়া যায় না। আমাদের এখানে ঘুরে, কারণ আমাদের সক্ষমতা আছে।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা পরিষদ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন অর রশীদ হাওলাদার। তিনি বলেন, ‘দেশের যে কোনো অশুভ শক্তিকে প্রতিহত করে পুনরায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় নিতে সংসদ সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানরা কাজ করবেন।’

এ সময় আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদক রোকেয়া সুলতানা, দোহার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আলমগীর হোসেন প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উপজেলা পরিষদ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম খান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ