রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন

সংসদে পৌনে ৭ লাখ কোটি টাকার বাজেট পেশ

রিপোর্টারের নাম :
আপডেট : জুন ৯, ২০২২

নতুন অর্থবছরের জন্য ১৪.২৫% ব্যয় বাড়িয়ে ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট জাতীয় সংসদে পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত এই ব্যয় বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের চেয়ে ১৪ দশমিক ২৫ শতাংশ বেশি। আর মূল বাজেটের চেয়ে এটি ১২ দশমিক ৩২ শতাংশ বেশি।

বিদায়ী অর্থবছরে মুস্তফা কামালের দেয়া মূল বাজেটের আকার ছিল ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার। সংশোধিত বাজেটে তা কমিয়ে ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকায় নামিয়ে আনা হয়।

আজ বৃহস্পতিবার (৯ই জুন) বিকেলে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে জাতীয় সংসদে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী। এর আগে মন্ত্রিসভার অনুমোদনের পর ওই প্রস্তাবে সই করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

এবারের ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেটে উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ৫৯ হাজার ৬১৭ কোটি টাকা, যা জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এসইসি) সভায় ইতোমধ্যে অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

নতুন বাজেটে পরিচালনসহ অন্যান্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৩১ হাজার ৬৫৭ কোটি টাকার। এই ব্যয়ের মধ্যে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বাবদ ব্যয় করা হবে ৭৬ হাজার ৪১২ কোটি টাকা। পণ্য ও সেবার জন্য ব্যয় করা হবে ৩৮ হাজার ৩৩২ কোটি টাকা।

ঋণের সুদ পরিশোধে ব্যয় হবে ৮০ হাজার ২৭৫ কোটি। ভর্তুকি প্রণোদনা ও নগদ ঋণ বাবদ ১ লাখ ৭৭ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা ব্যয় হবে।

উন্নয়ন ব্যয়ের মধ্যে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) খরচ করা হবে ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকা। এডিপি বহির্ভূত বিশেষ প্রকল্পে ব্যয় হবে ৭ হাজার ৭২১ কোটি টাকা। কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচিতে ২ হাজার ৬৭৫ টাকা খরচ করা হবে।

প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৩৩ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে কর থেকে পাওয়া যাবে ৩ লাখ ৮৮ হাজার কোটি টাকা। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আদায় করবে ৩ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকা।

এনবিআর বহির্ভূত কর থেকে আসবে ১৮ হাজার কোটি টাকা। কর ব্যতীত অন্যান্য খাত থেকে আদায় হবে ৪৫ হাজার কোটি টাকা।

বিদেশি অনুদান পাওয়া যাবে ৩ হাজার ২৭১ কোটি টাকা। সব মিলিয়ে আয় ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৩৬ হাজার ২৭১ কোটি টাকা।

নতুন বাজেটে বাজেট ঘাটতি ধরা হয়েছে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা, যা জিডিপির ৫ দশমিক ৫ শতাংশ। এই ঘাটতি পূরণের জন্য ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ১ লাখ ৬ হাজার ৩৩৪ কোটি টাকার ঋণ নেয়ার লক্ষ্য ধরা হয়েছে। সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ নেয়া হবে ৩৫ হাজার কোটি টাকা।

৫ হাজার ১ কোটি টাকা আসবে অন্য উৎস থেকে। বিদেশি ঋণ থেকে আসবে ১ লাখ ১২ হাজার ৪৫৮ কোটি টাকা।

প্রস্তাবিত বাজেটে ভর্তুকি প্রণোদনা এবং ঋণ বাবদ রাখা হয়েছে ৮২ হাজার ৭৪৫ কোটি টাকা, যা জিডিপির ১ দশমিক ৯০ শতাংশ। এর মধ্যে খাদ্য বাবদ খাদ্য ভর্তুকির জন্য রাখা হয়েছে ৬ হাজার ৭শ ৪৫ কোটি টাকা।

বিদ্যুৎ খাতের ভর্তুকিতে ব্যয় হবে ১৮ হাজার কোটি টাকা। অন্যান্য খাতে ১৭ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। সব মিলিয়ে মোট ভর্তুকির পরিমাণ ৪২ হাজার ৪৫ কোটি টাকা।

কৃষিতে প্রণোদনার জন্য রোখা হয়েছে ১৫ হাজার কোটি টাকা। রপ্তানিতে নগদ প্রণোদনা ৮ হাজার ৩০০ কোটি টাকা।

পাটজাত দ্রব্যে প্রণোদনার জন্য ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা রাখা হয়েছে। প্রবাস আয় বা রেমিট্যান্সের প্রণোদনার জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৬ হাজার ২০০ কোটি টাকা।

প্রস্তাবিত বাজেটে সামাজিক সুরক্ষায় মোট ১ লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

চলতি বাজেটে এ খাতে বরাদ্দ ছিল ১ লাখ ৭ হাজার ৬১৪ কোটি টাকা।

গত বছরের তেসরা জুন অর্থমন্ত্রী সংসদে যে বাজেট পেশ করেছিলেন, তার আকার ছিল ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্যান্য সংবাদ